যেভাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত /লক্ষণযুক্ত মায়ের নবজাতক শিশুর যত্ন নিবেন

  • পোস্ট করা হয়েছে এপ্রিল ১৮ই, ২০২০

যেভাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত /লক্ষণযুক্ত মায়ের নবজাতক শিশুর যত্ন নিবেন

দীর্ঘ নয় মাসের লালিত স্বপ্নগুলো যেন ভেঙে যায় এক মুহূর্তে যখন সন্তান হওয়ার ঠিক আগেই মা যদি আক্রান্ত হয়ে পড়েন করোনায়। শিশুটির পরিচর্যার বিষয়ে ভীতি থাকে, না জানি এই ভাইরাস মায়ের শরীর থেকে চলে যাবে শিশুর শরীরে ।সর্বশেষ গবেষণা অনুযায়ী বছরের নীচে আক্রান্ত হয়েছে প্রায়  ১১. শতাংশ শিশু।

পরিচর্যায় যেসকল সাবধানতা লাগবে

  • জন্মের পর পরেই মা থেকে সদ্যোজাতকে একটু আলাদা রাখাই ভাল।
  • দুজনকেই এক ঘরে রাখা যেতে পারে। কিন্তু দুজনের মধ্যে অন্তত ছয় ফুটের ব্যবধানে রাখতে হবে
  • সদ্যোজাত শিশুটির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে মায়ের দুধ খাওয়াতে হবে কিন্তু সরাসরি সন্তানকে স্পর্শ না করে কাপড়ের উপর দিয়ে স্পর্শ করাই শ্রে়য়।  
  • শিশুটিকেও মাতৃস্তন পান করানো যেতে পারে যদি মা ঠিক ভাবে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে, মুখে মাস্ক পরে, গাউন গায়ে দিয়ে খাওয়ানোর মতো অবস্থায় থাকেন ।
  • শিশুটি  করোনায় আক্রান্ত কিনা জানতে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নাক মুখ থেকে লালারসের নমুনা পাঠাতে হবে । আর দ্বিতীয়টা পাঠাতে হয় ৪৮-৭২ ঘণ্টার মধ্যে ।
  • হসপিটালে  থাকার সময়ে এক-দুজন বিশেষ ব্যক্তি ছাড়া শিশুটিকে অন্য কেউ স্পর্শ না করাই ভালো ।
  • শিশুটিকে দেখার জন্য আত্মীয়পরিজন বা প্রতিবেশীদের ভিড় এড়িয়ে চলাই ভাল।
  • সদ্যোজাতদের চোখ সকালবেলা জুড়ে যেতে পারে  সে ক্ষেত্রে কিছু তুলোর টুকরো গরম জলে ফুটিয়ে পরিষ্কার করতে ব্যবহার করা ভালো ।
  • ভাইরাসের অস্তিত্ব না থাকলে স্বাভাবিক  শিশুর মতো তাকেও ভিটামিন-ডি মাল্টিভিটামিন ড্রপ দেওয়া যেতে পারে ।

মা যখন  শিশুটির যত্ন নিজে নিতে পারবেন

মায়ের শরীরে গত ৭২ ঘণ্টা (জ্বরের ওষুধ ছাড়াই) জ্বর না থাকে যদি মায়ের শরীরে প্রথম লক্ষণ দেখা দেওয়ার সময়সীমা সাত দিন পেরিয়ে যায়। আর ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে হওয়া দুটি পিসিআর রিপোর্ট নেগেটিভ আসে কেবল তখন-ই মাকে মোটামুটি রোগমুক্ত ধরা হবে  এবং তখন তিনি শিশুটির কাজগুলি করতে পারবেন। (আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব পেডিয়াট্রিক্স)

লেখক
ছাত্র

Ask Doctor Information

আপনি আরও দেখতে পারেন
ডাক্তার